কলেজ হিসাবরক্ষকের ব্যক্তিগত একাউন্টে ২৪ কোটি টাকা : দুদকের মামলা

Anweshan Desk

Anweshan Desk

২০ নভেম্বর ২০২৩, ১৫:১৮ পিএম


কলেজ হিসাবরক্ষকের ব্যক্তিগত একাউন্টে ২৪ কোটি টাকা : দুদকের মামলা

রাজধানীর ডেমরার ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের হিসাবরক্ষক আকরাম মিয়ার ব্যাংকের ব্যক্তিগত হিসাবে ২৪ কোটি ২৯ লাখ ৮৯ হাজার টাকার এফডিআর পেয়েছে দুদক। তব, গচ্ছিত এই টাকার বিপরীতে কোনো বৈধ উৎস দুদককে দেখাতে পারেননি আকরাম মিয়া। এরই পরিপ্রেক্ষিতে গতকাল সোমবার দুদকের ঢাকা সমন্বিত জেলা কার্যালয়-১  এ একটি মামলা দায়ের করেন দুদকের উপপরিচালক শারিকা ইসলাম।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ড. মাহবুবুর রহমান কলেজের প্রধান হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা মো. আকরাম মিয়ার নামে বেসিক ব্যাংকের মাতুয়াইল শাখায় ২০২২ সালের ৭ মার্চ পর্যন্ত পাঁচটি এফডিআর হিসাব খোলা হয়। হিসাবগুলো হলো- ৬১১৮-০১-০০১০৬৩৭, ৬১১৮-০১-০০১০৬৪২, ৬১১৮-০১-০০১০৬৫৮, ৬১১৮-০১-০০১০৬৬৩ ও ৬১১৮-০১ ০০১০৬৭৯।

বর্তমানে হিসাবগুলোতে ২৪ কোটি ২৯ লাখ ৮৯ হাজার ৫২৪ টাকা স্থিতি রয়েছে। কলেজের হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তার নামে ব্যাংকে ওই টাকার এফডিআর হিসাব থাকার বিষয়টি অস্বাভাবিক এবং জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ হিসেবে অর্জিত। এমনকি ওই টাকা আকরাম মিয়ার অন্যান্য হিসাব থেকেই স্থানান্তরিত হয়েছে বলে দুদকের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে।

দুদক সূত্রে আরও জানা যায়, আকরাম মিয়া ২০১০ সালের ১ জুন ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজে হিসাবরক্ষক পদে মাসিক ৩ হাজার টাকা বেতনে যোগদান করেন। যোগদানের পর থেকে ডিসেম্বর ২০২২ পর্যন্ত সর্বসাকুল্যে বেতন পান ৪২ লাখ ৭৩ হাজার ৩৪৩ টাকা। যা বেসিক ব্যাংকের এফডিআর হিসাবে জমা হওয়া ঐ টাকার সঙ্গে সংগতিপূর্ণ নয়।

এমনকি অ্যাকাউন্টে টাকাগুলো রাখার বিষয়ে তিনি ড. মাহবুবুর রহমান মোল্লা কলেজের গভর্নিং বডির কোনো অনুমোদন বা রেকর্ডপত্র প্রদান করতে পারেনি। তাছাড়া, কলেজের আয়-ব্যয় খাতওয়ারি হিসাবভুক্ত করে কলেজের নিজস্ব ব্যাংক অ্যাকাউন্টে রাখার বিধান রয়েছে, তা কোনো কর্মচারীর ব্যক্তিগত হিসেবে রাখার সুযোগ নেই। 

২০০৯ সালের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের প্রবিধানমালা অনুসারে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে নিকটবর্তী কোনো তফসিলি ব্যাংকে হিসাব থাকবে যা গভর্নিং বডি বা ক্ষেত্রমত, সদস্য-সচিবের যৌথ স্বাক্ষরে পরিচালিত হবে। আকরাম মিয়া এ সংক্রান্ত কোনো প্রমাণ দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন।  

যে কারণে তার বিরুদ্ধে দুদক আইন, ২০০৪ এর ২(১) ধারা এবং অবৈধ উৎস গোপন করার অসৎ উদ্দেশ্যে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন ব্যাংকে স্থানান্তর ও রূপান্তরের মাধ্যম মানিলন্ডারিং প্রতিরোধ আইন ২০১২-এর ৪(২) ও ৪(৩) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়েছে। যদিও মামলায় কলেজ কর্তৃপক্ষের কাউকে আসামি করা হয়নি।


Link copied