নারায়ণগঞ্জে নামাজের সময় গান বাজানোর অভিযোগে চারুকলা ইনস্টিটিউটে হামলা - ভাঙচুর ও মারধর

Anweshan Desk

ডেস্ক রিপোর্ট

১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:৪২ এএম


নারায়ণগঞ্জে নামাজের সময় গান বাজানোর অভিযোগে চারুকলা ইনস্টিটিউটে হামলা - ভাঙচুর ও মারধর

ছবি : হামলা পণ্ড চারুকলা ভবন এবং শিল্পকর্ম

নারায়ণগঞ্জ পৌরসভার দেওভোগ এলাকায় চারুকলা ইনস্টিটিউট প্রাঙ্গণে আয়োজিত এক কনসার্টে নামাজের সময় গান বাজানোর অভিযোগ তুলে হামলা চালায় একদল যুবক। গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ৮টায় এই হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীরা এ সময় চারুকলা ইনস্টিটিউটের নিচতলায়ও ভাঙচুর চালায়।

এসএসসি-৯৫ ব্যাচের সদস্যদের গ্রুপ ‘ইউনাইটেড ৯৫’ ওই মিলনমেলা ও কনসার্টের আয়োজন করে। সন্ধ্যার পর থেকে সেখানে শুরু হয় কনসার্ট। নামাজের বিরতিতে ১০ মিনিট গান বন্ধ রেখে ফের চালু হয় কনসার্ট। পরে ডিআইটি মসজিদ থেকে একদল মুসল্লি এসে গান বন্ধ করতে বললে কনসার্টের আয়োজকেরা গান বন্ধ করে দেন।

এর কিছুক্ষণ পরে একদল যুবক এসে কনসার্টে হামলা চালায়। সেখানকার মঞ্চ ও চেয়ার-টেবিল ভাঙার পর পাশে থাকা চারুকলা ভবনের নিচতলায় ভাঙচুর করেন। এ ছাড়া বেশ কয়েকজনকে মারধরও করা হয়। হেনস্তার শিকার হয়েছেন চারুকলা ইনস্টিটিউটের ভেতর অবস্থান করা বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী।

ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ইউনাইটেড ৯৫ গ্রুপের এক সদস্য বলেন, ‘নামাজের বিরতি দিয়ে আমরা ১০ মিনিট কনসার্ট বন্ধ রাখি। সমস্যা হচ্ছে আশপাশে তিনটি মসজিদ, একেক মসজিদে নামাজের সময় একেক রকম। ফলে এক মসজিদের সময় অনুযায়ী বন্ধ রাখলেও আরেক মসজিদের সময়ের সঙ্গে সেটা মেলেনি। তারপরও মুসল্লিরা এসে আপত্তি জানালে গান বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু এর কিছু সময় পর একদল বখাটে যুবক এসে হামলা ও ভাঙচুর চালায়। পুরো অনুষ্ঠান পণ্ড হয়ে গেছে।’

চারুকলার ছাত্র নাহিয়ান বলেন, ‘১৪ ফেব্রুয়ারি বসন্তবরণকে কেন্দ্র করে আমাদের আলপনা ও নানান নকশা, ফ্রেম তৈরির কাজ চলছিল। হামলাকারীরা মঞ্চ ভাঙচুর করলে আমাদের একজন কিবোর্ড রক্ষা করতে দৌড়ে চারুকলার ভেতর আশ্রয় নেওয়ার চেষ্টা করে। সে সময় হামলাকারীরা এসে কিবোর্ড ভাঙচুর করে। তারপর যাওয়ার সময় আমাদের আলপনা, ফ্রেম নষ্ট করে দিয়ে গেছে। আমাদের কয়েকজন বন্ধু বাধা দিতে চাইলে তাদের গায়েও হাত তোলা হয়।  এই ঘটনার পর আমরা নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় আছি।’

এ বিষয়ে নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শাহাদাৎ হোসেন বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আমাদের পুলিশ টিম গেছে। এই বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তবে কোনো পক্ষই আমাদের কাছে কোনো অভিযোগ দেয়নি।’

ধর্মীয় সংখ্যালঘু নির্যাতন থেকে আরও


Link copied