ইসলাম নিয়ে কটুক্তি : জবি শিক্ষার্থীর ৫ বছরের কারাদণ্ড

Anweshan Desk

Anweshan Desk

১৩ মে ২০২৪, ১৯:২৩ পিএম


ইসলাম নিয়ে কটুক্তি : জবি শিক্ষার্থীর ৫ বছরের কারাদণ্ড

ছবি : জবি শিক্ষার্থী তিথি সরকার

ইসলামকে নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের করা মামলায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) থেকে সাময়িক বহিষ্কৃত শিক্ষার্থী তিথি সরকারকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসাথে তাকে এক বছরের জন্য প্রবেশনে পাঠানো হয়েছে। সোমবার (১৩ মে) ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক জুলফিকার হায়াত এ রায় দেন।

এই রায়ের ফলে তিথি সরকারকে প্রাথমিকভাবে কারাভোগ করতে হবে না। তবে এক বছরের জন্য সমাজসেবা অধিদপ্তরের একজন প্রবেশন কর্মকর্তার পর্যবেক্ষণে থাকতে হবে তাঁকে। আইন অনুসারে প্রবেশন হলো—যে অবস্থায় প্রথম অপরাধের শাস্তি মওকুফ করা হয় এবং আদালতের দেওয়া কিছু শর্ত মেনে চলতে হয়। প্রবেশন কর্মকর্তা যদি সাজাপ্রাপ্ত আসামির আচরণ সন্তোষজনক মর্মে প্রতিবেদন দেন, তবে আসামির কারাদণ্ড মওকুফ হবে। অন্যদিকে, প্রবেশন কর্মকর্তা সাজাপ্রাপ্ত আসামির আচরণ অসন্তোষজনক মর্মে প্রতিবেদন দেন—তাহলে প্রবেশন বাতিল ও প্রদত্ত শাস্তি ভোগ করতে হবে। 

সংশ্লিষ্ট আদালতের বিশেষ পিপি মোহাম্মদ নজরুল ইসলাম শামীম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

২০২০ সালের ৫ নভেম্বর ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালে আবু মুসা রিফাত নামে এক ব্যক্তি তার বিরুদ্ধে এ মামলা দায়ের করেন। মামলায় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) সম্পর্কে কটূক্তি করে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ আনা হয়।

মামলায় অভিযোগ করা হয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী তিথি সরকার গত ১৬ অক্টোবর থেকে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে নিজের ফেসবুক পেজ থেকে ধর্মানুভূতিতে আঘাত ও কটূক্তি করেছেন।  এরপর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) তিথি সরকারকে গ্রেপ্তার করে। তখন তিনি ২১ মাস কারভোগ করেন এবং পরে জামিনে মুক্ত হন।

ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়ার কারণে তিথিকে তার সংগঠন ছাত্র অধিকার পরিষদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। একই অভিযোগে ওই বছর ২৬ অক্টোবর রেজিস্ট্রার স্বাক্ষরিত আদেশে তিথি সরকারকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকেও বহিষ্কার করা হয়।

সাক্ষাৎকার থেকে আরও

কোনো খবর পাওয়া যায়নি


Link copied